সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

মেহেরপুরে আউট সোর্সিং-এ ৩৩ যুবকের সাফল্য ॥ প্রধান উদ্যোক্তা মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাত

মেহেরপুর সদর উপজেলার চাঁদবিল গ্রামের ৩৩ যুবক আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। প্রযুক্তির যুগে ঘরে বসেই অর্থ উপার্জন করা যায় তার উদাহরণ ওই যুবকেরা। প্রধান উদ্যোক্তা মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাত প্রতি মাসে আয় করছেন ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকা।
Logo of Meherpur News 24

বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছিলেন ‘বিশ্বটাকে দেখবো আমি আপন হাতের মুঠোয় পুরে। বর্তমান সময়ের মানুষ ইন্টারনেটে বসে বিশ্বকে দেখার স্বপ্ন পূরণ করছে। শুধু বিশ্বকে দেখাই নয়, রোজগারও করছে ঘরে বসে। ফ্রিল্যান্সিং বা আউট সোর্সিং শব্দটির সাথে মফস্বলের মানুষ এখনও তেমন পরিচিত হয়ে উঠতে পারেনি। তবে মেহেরপুরের আমঝুপি গ্রামের মুন্সি জাহাঙ্গীর জিন্নাত হিরক আউট সোর্সিংকে কাজে লাগিয়ে আয় করছেন মোটা অংকের টাকা। ২০০৪ সালে বেসরকারী বিশ্ব বিদ্যালয় নর্দান ইউনিভার্সিটিতে বি.বি.এ ভর্তি হোন তিনি। ভর্তির শুরু থেকেই আইটির প্রতি ঝুকে পড়েন। এ সময় থেকে শখের বসে তিনি আউটসোর্সিং এর কাজ শুরু করেন। ২০০৬ সালে অনার্স চলাকালিন সময়ে একটি মোবাইলফোন কম্পানিতে চাকুরি শুরু করেন। ২০০৯ সালে চাকুরির পাশাপাশি ফ্রীল্যান্সার শুরু করেন। ২০১০ সালে একই ইউনিভার্সিটি থেকে এম.বি.এ.শেষ করেন। একই সময়ে চাকুরি ছেড়ে দিয়ে তার নিজ গ্রাম চাঁদবিলে চলে আসেন। সেখানে তার নিজ বাড়িতে আবারও ফ্রীল্যান্সারের কাজ শুরু করেন। প্রথম প্রথম এটি নিছক পাগলামি বলে অনেকে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টা করেন। কিন্তু হাল ছাড়েননি তিনি। এক সময় পেয়ে যায় ওডেক্স’ সহ আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয়ের পথ। এখন তিনি মাসে ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকা আয় করছেন।

মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাত ২০১০ সালে কলি ইনকর্পোরেটচু এ প্রজেক্ট ম্যানাজার হিসিবে যোগদান করেন। ওখানে ওয়ার্ডপ্রেসডেভোলপমেন্ট, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে কাজ করেন। টানা ১ বছর ৪ মাস কাজ করেন। ২০১১ সালে আমেরিকা ভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান “পিকলিমোইন কর্পোরেট”-এস.ইও ওম্যানেজার হিসাবে যোগদান করেন। এখানে প্রথমে তিনি কন্টেন্ট লেখক হিসাবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে বায়াররা তাঁকে ম্যানেজার হিসাবে পদউন্নতি করেন। এখানে তিনি টানা ১ বছর ৬ মাস কাজ করেন। ২০১২ সালে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়া ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান “লেভারেল ফিনান্সিয়াল মার্কেটিং ইনকর্পোরেট”-এস ইও-এর অ্যাসিস্ট্যান্ট (ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট) হিসাবে যোগদান করেন। এখানে সিইও-এর ই-মেইল চেক, ই-মেইলের উত্তর দেয়া, ও ক্লাইন্টদের সাথে যোগাযোগ করা, ক্লাইন্টদের সমস্যার সমাধান, ওয়েব রিসার্চ, কন্টেন্ট লেখকের কাজ করেন। এখানে ৭ মাস কাজ কাজ করেন তিনি। ২০১৩ সালে অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান “ব্রাউজিং মিডিয়া লিমিটেডে এসইও প্রোজেক্ট ম্যানেজার হিসাবে যোগদান করেন। ঐ প্রোজেক্টের অন্যান্য এস ই ও এক্সপার্টদের দেখাশোনা করেন। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য ক্লাইন্টদের দেখাশোনা করেন, তাদের সমস্যার সমাধান করেন, বিজনেস ডেভেলপমেন্টে কাজ করেন, পাশাপাশি এস ইও, কন্টেন্ট লেখা, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্টের কাজ করেন। এসব প্রতিষ্ঠান শুধু তিনি নিজেই নয়, এখন তিনি আমঝুপিতে একটি অফিস নিয়ে ‘ইউনিক সফট বিডি’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান খুলে আউট সোর্সিংয়ের ফ্রি শিক্ষা দিচ্ছেন। এখন তার ছাত্র সংখ্যা ৪০০ জন। এরা সবাই এখন ঘরে বসে আয় করছেন।

তার ছাত্র সোহেল রানা জানান, মেহেরপুর সরকারি কলেজের দ্বাদশশ্রেণীর ছাত্র তিনি। অর্থের অভাবে তার পড়া-লেখা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এখন আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে পাড়ালেখার পাশাপাশি সংসারও চালাচ্ছেন তিনি। পল্লী চিকিৎসক নাছিম জানান, চাকুরি অথবা ব্যবসার পাশাপাশি আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি আয় করছেন তাদের সাথে অনেকেই।

মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাতের সব সময়ের সহকর্মী আশরাফুল ইসলাম জানান, বিদেশ থেকে আসা টাকা পেপাল বা অন্য কোন সুবিধা না থাকায় আউট সোর্সিং এর মাধ্যমে উপার্জিত অর্থ তুলতে ভোগান্তি পোহাতে হয় তাদের। এছাড়া ইন্টারনেটের ধীর গতি ও বিদ্যুতের লোড শেডিং প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সমস্যার সমাধান হলে তারা আও এগিয়ে যাবেন বলে মনে করেন।

মেহেরপুর সরকারি কলেজের আইসিটি বিভাগের প্রধান ও পদার্থ বিজ্ঞানের প্রভাসক আব্দুল মালেক জানান, মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাত তারই ছাত্র। তার কৃতিত্বে তিনি খুশি। কৃষি প্রধান এ জেলার বেকার যুবক ও ছাত্রদের আউটসোর্সিং এর আরও প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করে তাদের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে পারিবার, সমাজ ও রাষ্টের উন্নয়ন ঘটানোর আহ্বান জানান তিনি। বিস্তারিতঃ http://www.bangla.meherpurnews24.com/2014/01/14/%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%B9%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%89%E0%A6%9F-%E0%A6%B8%E0%A7%8B%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82-%E0%A6%8F-%E0%A7%A9/

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

মিষ্টিবাড়ির শুরু ১ কেজি মিষ্টির দাম দিয়ে

প্রযুক্তির এই যুগে ই-কমার্সের মাধ্যমে অনেকেই এখন অনলাইনে কেনাবেচা করছে। অনলাইনে কেনাবেচা এখন শুধু শহর অঞ্চলে সীমাবন্ধ নয়, ছড়িয়ে পড়ছে গ্রামান্তরে। এখন অনলাইনে সকল পণ্য মিললেও কিছু কিছু পণ্য অনলাইনে পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য, তেমনি একটি পণ্য হলো মিষ্টি। এই কষ্টসাধ্য ব্যাপারটিকে সহজ করেছে দেশের বিভিন্ন জেলার মিষ্টি অনলাইনে বিক্রি করে মিষ্টিবাড়ি।  নিজের প্রতিষ্ঠানকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে যেতে চায় মিষ্টিবাড়ির প্রধান নিবার্হী এস এম আল-মেরাজ। মিষ্টিবাড়ির শুরু, পরিকল্পনা, সফলতা ইত্যাদি প্রভৃতি উঠে এসেছে ব্রেকিংনিউজের প্রতিবেদক অঞ্জন চন্দ্র দেবের নেয়া সাক্ষাৎকারে:  ব্রেকিংনিউজ: আপনার সর্ম্পকে সংক্ষপে বলুন। মেরাজ: আমার গ্রামের বাড়ি মেহেরপুর জেলার আমঝুপি গ্রামে। আমার বেড়ে উঠা গ্রামের বাড়িতে। মানবিক নিয়ে পড়াশোনা করছি মেহেরপুর সরকারি কলেজে এবারে এইচএসসি পরীক্ষার্থী। ইন্টারে উঠার পর থেকেই নিজে নিজে কিছু করার চেষ্টা সব সময় কাজ করতো। চেষ্টা করতাম নতুন কোন আইডিয়া নিয়ে কাজ করার। সে চেষ্টা থেকেই মিষ্টিবাড়ি নিয়ে যাত্রা শুরু ২০১৪ সালে। ব্রেকিংনিউজ: মিষ্টিবাড়ির শুরুটা সর্ম্পকে বলুন? মেরাজ: প্

মেহেরপুরে ফ্রিল্যান্সার কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ওয়েব ক্রিট অর্গানাইজেশন এর উদ্যোগে ফ্রিল্যান্সার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বিকালে মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে ওয়েব ক্রিট অর্গানাইজেশনের সিইও জোহা বিশ্বাসের সভাপতিত্বে ফ্রিল্যান্সার সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র আলহাজ্ব মোতাছিম বিল্লাহ মতু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাজেদুর রহমান খান, ইল্যান্স-ওডেস্ক এর মোবিলাইজার নাজমুল হাসান তপু, আলফা ডিজিটাল এর সিইও মামুনুর রশিদ। মেহেরপুরের সফল ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুন্সী জাহাঙ্গীর জিন্নাত হিরক, এনামুল হক, সিমসান মল্লিক, ইমরান হোসেন, রাসেল হোসেন, তুষার ইমরান, পলাশ রাসেল, সুমন রেজা, আলমগীর কবির প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বলেন, নিজরে মনের কালিমাকে দুর করে মহামানবকে জাগিয়ে তুলুন। একবার জন্ম নিয়েছেন এরই মধ্যে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমান করুন। বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে নিজেক স্মরনীয় করে রাখার জন্য কিছু কাজ করুন। তথ্য প্রযুক্তির বিকাশমান ধারায় জেলাকে এগিয়ে নিতে হলে সকলকে এ বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে উঠতে হবে। প্রধান অতিথির বক্তব্য প

খুলনায় সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে ধারণা দেয়ার লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

খুলনা বিভাগীয় প্রশাসনের উদ্যোগে সোমবার বিভাগীয় কমিশনারের সম্মেলন কক্ষে সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে ধারণা দেয়ার লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মশালার উদ্বোধন করেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আবদুস সামাদ। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, বেকার সমস্যা দূর করা ও নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং অন্যতম একটি মাধ্যম। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন এবং অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে ফ্রিল্যাংন্সিং একটি সম্ভাবনাময় খাত। বিভাগীয় কমিশনার অংশগ্রহণকারীদের সম্ভাবনাময় এ খাতে নিজস্ব মেধা ও প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে উন্নয়নের অভিযাত্রায় সামিল হবার আহবান জানান। কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ ফারুক হোসেন এবং খুলনা জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তফা কামাল। কর্মশালায় ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে বিস্তারিত ধারনা উপস্থাপন করেন সফল ফ্রিল্যান্সার ও ইউনিক সফট বিডি’র সিইও মুন্সি জাহাঙ্গীর জিন্নাত হিরোক। কর্মশালায় খুলনা বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।  অননিউজ.কম